‘নির্বাচনে ব্যর্থতা ঢাকতেই সংখ্যালঘুদের উপর হামলা’

৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ও পরে সংখ্যালঘুদের উপরে নির্যাতন, জামায়াত শিবির নিধনের নামে সাধারণ মানুষকে হয়রানি এসব সম্পর্কে বলতে গিয়ে বিবিসি ফোন ইন অনুষ্ঠানে রংপুরের দিলরুবা রহমান রূপা বলেন, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে তারা ৫ বা ১০ যত শতাংশ ভোটই পাক না কেন এই সরকারের যে কোনও গ্রহণযোগ্যতা নেই, তা মানুষের কাছ থেকে আড়াল করার জন্য সংখ্যালঘুদের উপরে নির্যাতন করা হচ্ছে। সরকার বারবার বলছে, বিরোধী দল ও জামায়াত শিবিরের লোকজন এগুলো করছে। কিন্তু আমার মনে হয় সরকারেরই এটা করছে।

এমন মনে হওয়ার কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমার বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার বাবুবাজার। গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জে যে ঘটনাটা ঘটেছে তা আমরা বাংলাদেশের মানুষ সবাই জানি। সেখানে কদমতলী এলাকার যত গ্রাম, বলা হচ্ছে ঐসব গ্রামে জামায়াত শিবির ধরার জন্য যৌথ বাহিনী গেছে। কিন্তু ঐখানে অনেক সাধারণ মানুষও হয়রানির শিকার হচ্ছে। শুধু যৌথবাহিনী নয়, সেখানে অনেক আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাও এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল।

নিজেকে প্রতক্ষদর্শী উল্লেখ করে রূপা বলেন, বিভিন্ন চ্যানেল বা পত্রপত্রিকা দেখাচ্ছে শুধু যৌথ বাহিনী হয়রানির শিকার হচ্ছে। সব কিছু ভেঙে চুরমার করা হয়েছে । ঐ এলাকার কোনো পুরুষ মানুষ এখন সেখানে নাই। গ্রামের পর গ্রাম সেখানে পুরুষশূণ্য। যৌথ বাহিনী এবং আওয়ামী লীগ যা করছে, স্থানীয় মানুষ বা আমি যদি তা না দেখতাম তবে আমার বুঝার উপায় ছিল না। আমার মনে হয় সরকার যদি ইচ্ছা করে, সকল দল-মতের ঊর্ধ্বে উঠে এই সমস্যাগুলো সমাধান করতে পারে।

সূত্র: আমাদের সময়

Advertisements
This entry was posted in in Bangla and tagged , . Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s